ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ২১ আইনজীবীকে ফের ১৯ ফেব্রুয়ারি আদালতে হাজিরের নির্দেশ

<![CDATA[

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ২১ আইনজীবীকে ফের ১৯ ফেব্রুয়ারি হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এজলাস চলাকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা জজ শারমিন নিগারের নামে স্লোগান ও বিচার বিঘ্নিত করার অভিযোগের তলবে সোমবার হাইকোর্টে হাজির হন জেলা আইনজীবী সমিতির সম্পাদকসহ ২১ আইনজীবী।  

এ সময় উচ্চ আদালত বলেন, আইনজীবীরা যে ভাষায় কথা বলেছেন তা কমলাপুরের কুলিরাও ব্যবহার করে না। পরে আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি ওই আইনজীবীদের ফের হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

এর আগে গত ১০ জানুয়ারি তাদের তলব করে আদালত অবমাননার রুল জারি করা হয়।

গত ২ জানুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কাছে ‘এজলাসে আদালতের বিচারক ও কর্মচারীদের অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ ও অশালীন আচরণের জন্য আদালত অবমাননার ব্যবস্থা গ্রহণের প্রার্থনা’ শীর্ষক একটি চিঠি পাঠান ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের-১ বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) মোহাম্মদ ফারুক।

এ চিঠি প্রধান বিচারপতি বরাবর উপস্থাপন করেন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল। পরে প্রধান বিচারপতি বিষয়টি নিষ্পিত্তির জন্য বিচারপতি জে বি এম হাসানের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে উপস্থাপনের নির্দেশ দেন।

আরও পড়ুন: মানবতাবিরোধী অপরাধে ময়মনসিংহে ছয়জনের মৃত্যুদণ্ড

সে অনুসারে এ বেঞ্চে নথি উপস্থাপন করা হয়। এরপর ৫ জানুয়ারি হাইকোর্ট রুল জারি করে সভাপতি অ্যাডভোকেট তানভীর ভূঁইঞা, সম্পাদক (প্রশাসন) অ্যাডভোকেট মো. আক্কাস আলী ও অ্যাডভোকেট জুবায়ের ইসলামকে আদালতে তলব করেন। ১৭ জানুয়ারি হাইকোর্টে হাজির হয়ে তাদের এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়।

এরপর গত ৫ ও ৮ জানুয়ারি এজলাস চলাকালে কয়েকজন আইনজীবী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা জজ শারমিন নিগারের বিরুদ্ধে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ স্লোগান দেন। এতে বিচারকাজ বিঘ্নিত হয়েছে উল্লেখ করে প্রতিকার চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল বরাবর ৯ জানুয়ারি একটি চিঠি পাঠানো হয়।

এরপর বিষয়টি প্রধান বিচারপতির কাছে উপস্থাপন করেন রেজিস্ট্রার জেনারেল। প্রধান বিচারপতির নির্দেশ অনুসারে বিষয়টি ১০ জানুয়ারি আদালতে ওঠে।

আরও পড়ুন: আইনজীবীদের ভাষা কমলাপুরের কুলিরাও ব্যবহার করে না: হাইকোর্ট

জেলা আইনজীবী সমিতির সম্পাদক মফিজুর রহমান বাবুলসহ অভিযুক্ত অন্য আইনজীবীরা হলেন: অ্যাডভোকেট মিনহাজুল ইসলাম, এমদাদুল হক হাদি, নিজামুদ্দিন খান রানা, আনিছুর রহমান মঞ্জু, মো. জুম্মন চৌধুরী, রাশেদ মিয়া হাজারী, জাহের আলী, মো. আ. আজিজ খান, দেওয়ান ইফতেখার রেজা রাসেল, মো. ছদর উদ্দিন, মাহমুদুর রহমান রনি, মো. মাহবুবুর রহমান, মো. আরিফুল হক মাসুদ, মীর মোহাম্মদ রাইসুল আহম্মেদ, মহিবুর রহমান, মো. জাকারিয়া আহমেদ, মো. মোবারক উল্লা, মো. ফারুক আহমেদ, সফিক আহমেদ ও ইকবাল হোসেন।

]]>

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button