গাল্ফ কাপ জেতায় বিদ্বেষ ভুলে উৎসবের নগরী ইরাক

<![CDATA[

অতিরিক্ত সময়ের নাটকীয়তায় ওমানকে হারিয়ে অ্যারাবিয়ান গাল্ফ কাপের শিরোপা জিতেছে ইরাক। এমন অর্জনে যুদ্ধ বিদ্বেষ ভুলে পুরো ইরাক পরিণত হয়েছে উৎসবের নগরীতে। নেচে গেয়ে আনন্দ উদ্‌যাপন করছেন সবাই। সাধারণ দর্শক থেকে শুরু করে মিলিটারি গাড়িতে চড়ে সৈন্যরাও রাস্তায় নেমেছে আনন্দ মিছিলে।

অ্যারাবিয়ান গাল্ফ কাপ ফাইনাল। মধ্যপ্রাচ্যের এই মর্যাদার লড়াইয়ে এবার ওমানকে হারিয়ে শিরোপার স্বাদ পেয়েছে ইরাক। নির্ধারিত সময়ের ম্যাচ থাকে ১-১ গোলে ড্র। পরে অতিরিক্ত সময়ের নাটকীয়তায় শেষ হাসি হাসে ইরাক।

বছরের পর বছর যে ট্রফিটার জন্য হাহাকার ছিল, সেই ট্রফি জয়ের আনন্দে মেতেছে ইরাক ফুটবল দল। বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) গাল্ফ কাপের ফাইনালে ওমানকে ৩-২ গোলে হারিয়েছে ইরাক।

আরও পড়ুন: বাবুর্চি খুঁজছেন রোনালদো, বেতন মাসে ৬ লাখ টাকা

এর আগে বাসরা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে ইরাক আর ওমানের এই ফাইনালের মহারণ দেখতে এসে সংঘর্ষে জড়িয়ে চার ভক্ত প্রাণ হারিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে আল জাজিরা। এছাড়াও আহত হয়েছেন অনেকে। তাদের সেই ত্যাগ বৃথা যেতে দেয়নি ইরাক ফুটবল দল। শিরোপা জয়ের মধ্য দিয়ে দেশকে এনে দিয়েছেন আনন্দের উপলক্ষ। আর তাইতো ইরাকের গাল্ফ কাপের শিরোপা জয়ের পরপরই আনন্দের মিছিল বের হয় দেশটির রাস্তায়-রাস্তায়। সাধারণ দর্শক থেকে শুরু করে মিলিটারি বাহনে চড়ে ইরাকি সৈন্যরা আনন্দ মিছিল করতে করতে জড়ো হয় বিখ্যাত তাহরির স্কয়ারে।

নেচে-গেয়ে পতাকা উড়িয়ে শিরোপা জয়ের উদ্‌যাপনে মেতে ওঠে ভক্তরা। আতশবাজির ঝলকানি আর ভক্তদের উচ্ছ্বাসে মুখরিত হয়ে ওঠে চারপাশ।

আরও পড়ুন: যৌন হয়রানির অভিযোগে গ্রেফতার দানি আলভেস

উচ্ছ্বসিত সমর্থকদের একজন বলেন, ‘এদেশের মানুষ যেমন দেশকে ভালোবাসে, ঠিক তেমনি ফুটবলের প্রতিও অগাধ ভালোবাসা রয়েছে সবার। আর সেখান থেকেই ইরাক দলের প্রতি এতো ভালোবাসা এতো সমর্থন আমাদের। আমরা সবাই চেয়েছি স্টেডিয়ামে এসে খেলা দেখতে। স্টেডিয়ামে ঢুকতে পারিনি ঠিকই কিন্তু বাইরে জায়ান্ট স্ক্রিনে দেখেছি। সত্যিই দারুণ উপভোগ করেছি।’

আগামী বছরগুলোতে ইরাক ফুটবল দল সমর্থকদের আনন্দের উপলক্ষ ধরে রাখবে এমন আশা করে আরেক সমর্থক বলেন, ‘ইরাক ফুটবল দলকে আমাদের পক্ষ থেকে প্রাণঢালা অভিনন্দন এবং ভালোবাসা। তারা আমাদের গাল্ফ কাপের শিরোপা এনে দিয়েছে। আশা করি এই আনন্দের উপলক্ষ তারা আমাদের সামনের বছরগুলোতেও ঠিক একইভাবে এনে দেবে।’

]]>

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button